মোঃ গোলাম মোর্শেদ(শিবলী
মোঃ গোলাম মোর্শেদ(শিবলী

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এর দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর গড়ে উঠা দলটি ইতিহাসের নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে এদেশের মানুষের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

দলের প্রধান হিসেবে বেগম খালেদা জিয়ার কোনো বিকল্প নেই। আমাদের প্রিয় মাতৃভূমিতে এখন নেতৃত্বশূন্য করবার প্রতিযোগিতা চলছে যা অত্যন্ত দুঃখজনক, ভয়ানক এবং একটি রাষ্ট্রের জন্য বিপদজনক বটে। আমি এ বিষয়ে অন্য কোনো দিকে না গিয়ে আমার প্রিয় দল বিএনপি’র কথা বলছি।

আমাদের বিএনপিতে প্রচুর মেধা সম্পন্ন নেতৃত্ব রয়েছে যারা নেতৃত্ব কে গতিশীল, দিশেহারা, হতাশাগ্রস্ত তৃণমূল নেতা কর্মীকে সুসংগঠিত ও নির্বাসিত গণতন্ত্র কে ফিরিয়ে আনার আন্দোলনকে ত্বরান্বিত করবার জন্য যথেষ্ট। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য কিছু তেল মারা, দালাল নেতার জন্য এ সমস্ত পরিশ্রমই মেধাভিত্তিক নেতৃত্ব গুলো সামনে যেতে পারছেনা।

ফলে নেত্রীর মুক্তি প্রিয় নেতার নির্বাসিত জীবন থেকে পরিত্রান সহ সকল আন্দোলন ব্যর্থ হচ্ছে। আমি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ আমার রাজশাহী জেলার শ্রদ্ধাভাজন নেতৃবৃন্দ কে অনুরোধ করবো সামনের দিনগুলিতে আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে নতুন নেতৃত্বকে হতে হবে সৎ, দক্ষ, যোগ্য ও মেধা সম্পন্ন।

জনগণের সঙ্গে নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত যাঁরা, তাঁদের হাতেই যাক দলের নেতৃত্ব। নেতার নেতৃত্ব মানবে ভয়ে নয় ভালোবেসে, আমি কখনো নেতৃত্ব চাইনি, অনেকে বলেন, এই লেখাগুলো আমি লিখি নেতৃত্ব পাবার জন্য তাদের বলছি,নব্বইয়ের দশকে ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি ছিলাম।

প্রিয় নেত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে সশরীরে মাঠে ছিলাম, শারীরিকভাবে নির্যাতিত হয়েছি এরশাদের পেটুয়া বাহিনী দ্বারা, এখন অনেকটা পঙ্গুত্বের জীবন যাপন করছি।আমি দেশকে ভালোবাসি,

আমার প্রিয় দলকে ভালোবাসি, তাই মাঝে মাঝে যখন দেখি সংকট তখন ভেতরে রক্তক্ষরণ হয় আর তখনই মার্সিটি হাতে লিখতে শুরু করি। আশা করি প্রিয় নেতৃবৃন্দ শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত রেখে নতুন নেতৃত্ব উপহার দেবেন।

মোঃ গোলাম মোর্শেদ(শিবলী