দৃষ্টিপাত কর্মকারদের...

কর্মকারদের টুং টাং শব্দে মুখরিত গোয়ালকান্দি বাজার।

-

- Advertisment -

রাজশাহী জেলার বাগমারা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ইউনিয়ন গোয়ালকান্দি। ঐতিহ্যবাহী গোয়ালকান্দি বাজারেরর কর্মকারবৃন্দ হাসুয়া, দা, বটি, চাপ্পল,ছুরি, কাঁচি,দালি ও অন্যান্য সরঞ্জাম তৈরি করে থাকে।

কৃত্রিম বাতাসে কয়লার মাধ্যমে জ্বলছে আগুন সেই আগুনে তৈরি হচ্ছে হাসুয়া,দা, বটি,ছুরি,চাপ্পল, দালি, কাঁচি, কোদাল ও অন্যান্য সরঞ্জামাদি। শান দেওয়া ধারালো দা,বটি,ছুরি,চাকু,চাপ্পল সুন্দুরভাবে সাজিয়ে রাখা হয়েছে গোয়ালকান্দি বাজারের কর্মকার চত্বরে এবং পুরাতন দা,বটি,ছুরি, চাপ্পল অন্যান্য সরঞ্জাম শান দিয়ে ধারালো করেই দিচ্ছে কর্মকারবৃন্দ।

আগামী ২১-৭-২০২০ইং রোজ বুধবার অনুষ্ঠিত হবে মুসলমানদের বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ উল আযহা। ঈদ উল আযহা উপলক্ষে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে গোয়ালকান্দি বাজার এর কর্মকারবৃন্দ এবং টুং টাং শব্দে মুখরিত হয়ে উঠেছে।

মুসলমানদের ধর্মীয় বৃহৎ উৎসব ঈদ উল আযহা তে মহান আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য মুসলমানরা পশু কোরবানি দিয়ে থাকেন এই পশু কোরবানির জন্য প্রয়োজন হয়ে পড়ে দা,বটি,ছুরি, চাপ্পল ইত্যাদি। কোরবানির সময় চরম ব্যস্ত সময় পার করছেন গোয়ালকান্দি বাজারের কর্মকারবৃন্দ।

গোয়ালকান্দি বাজারের কর্মকার শ্রী রবি বলেন, ব্রিটিশ আমল থেকে গোয়ালকান্দি বাজারে কর্মকাররা এই কাজ করে আসছে। আমি ৫০বছর ধরে এই কাজ করে করছি। এই কাজ করে আমি খুবই আনন্দিত বোধ করি।

কর্মকার শ্রী নারায়ণ সংকর বলেন, আমি ৩০বছর ধরে এই কাজ করছি ভগবানের কৃপায় এই কাজ থেকে আমার সংসার ভালোভাবে চলে যাচ্ছে। আমি আমার বাপ-দাদার ঐতিহ্য ধরে রাখতে পেরে নিজেকে নিয়ে গর্বিত।

কর্মকার শ্রী কালি সংকর বলেন, অামার বাপ দাদার আমল থেকে এই কাজ ক্রমান্বয়ে হয়ে আসছে, বাপ দাদার কাছ থেকে আমি এই কাজের হাল ধরেছি। ভগবানের কৃপায় আমি এই কাজ থেকে আমার সংসার সুন্দুরভাবে চালাচ্ছি। আমি কর্মকারের এই পেশায় খুবই সুখি ।

গোয়ালকান্দি বাজারের কর্মকার শ্রী শ্যামল কুমার বলেন, এই কর্মকার এই কাজ থেকেই আমি আমার সংসার টিকে ভগবান এর কৃপায় ভালোই চালাচ্ছি। আমরা কর্মকাররা আগুনের তাপে ঘাম ঝরিয়ে দা, বটি, চাপ্পল, কোদাল ইত্যাদি তৈরি করি।

গোয়ালকান্দি বাজারে কর্মকারদের ইস্পাতের তৈরি চাপ্পল, বটি, দা ইত্যাদি পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ৩০০টাকা কেজী। ছুরি বা চাকু পাওয়া যাচ্ছে সর্বনিম্ন ৩০টাকা থেকে শুরু করো প্রজাতিভেদে ৬০০টাকা পর্যন্ত। এ ছাড়াও কর্মকাররা তৈরিকৃত সরঞ্জাম রেডিমেড বিক্রি করে এবং অর্ডার নিয়েই বিক্রি করে।

সর্বশেষ সংবাদ

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisement -

আজকের সেরা খবরসম্পর্কিত
আপনার জন্য প্রস্তাবিত