Copa America Champion

“কোপা আমেরিকায় শিরোপা ধরে রাখার মিশনে হোঁচট খেল ব্রাজিল। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনা ফাইনাল জিতে নিল ১-০ গোলের ব্যবধানে। ঘরে তুলল কোপা আমেরিকার শিরোপা। শেষ পর্যন্ত ঘুচল ২৮ বছরের অপেক্ষার। মেসির হাত ধরে প্রথমবারের মতো কোনো শিরোপা জয় করল আর্জেন্টিনা।


মুখোমুখি দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। পুরো ফুটবল দুনিয়ার চোখ কোপার ফাইনালে। প্রথমার্ধ শেষে হতাশা নিয়েই ড্রেসিংরুমে ফিরতে হয়েছে নেইমারদের। আর ১-০ গোলের লিডে স্বস্তি নিয়ে ফিরেছেন মেসিরা। 
ম্যাচের ২২ মিনিটে মারাকানাকে স্তব্ধ করে দিয়ে লিড নেয় আর্জেন্টিনা। ডি পলের লং পাসে বুদ্ধিদীপ্ত ফিনিশিং করেন ডি মারিয়া। গোলকিপারের মাথার ওপর দিয়ে বল পাঠিয়ে দেন জালে। উল্লাসে ফেটে পড়ে আর্জেন্টাইনরা। প্রথমার্ধের ওই গোল আর শোধ করতে পারেনি ব্রাজিল। ফলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় মেসির দল।
চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে ব্রাজিল। পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধে পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনেন সেলেসাও কোচ তিতে। ফ্রেডকে উঠিয়ে রবার্তো ফিরমিনোকে নামিয়ে আরও আক্রমণাত্মক খেলার আভাস দেয় স্বাগতিকরা।
এই পরিবর্তনে আক্রমণে ধার বাড়ে তাদের। ৫২ মিনিটে জালে বল জড়ান রিচার্লিসন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে বাতিল হয়ে যায় সে গোল। রেফারি অফসাইডের বাঁশি বাজালে হতাশ হতে হয় তাদের। এর ২ মিনিট পর আবারও সুযোগ পেয়েছিলেন রিচার্লিসন। কিন্তু আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজের নৈপুণ্যে এ যাত্রায়ও গোল করতে পারেননি এই ফরোয়ার্ড।

দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর দ্বৈরথ। উত্তেজনা স্বাভাবিক। ম্যাচে সেটা চোখেও পড়ল। ৮১ মিনিটে ফাউলকে কেন্দ্র করে হালকা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন দুই দলের ফুটবলাররা। তবে তা সামান্যই। ৮৬ মিনিটে গেবির বুলেট গতির শট আটকে দেন এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।
ম্যাচের শেষ পর্যন্ত দারুণ সব আক্রমণ শানালেও কোনো দলই গোল আদায় করতে পারেনি। ৮৮ মিনিটে গোলের সহজ সুযোগ মিস করেন মেসি। অতিরিক্ত সময়েও লিড বাড়াতে আক্রমণ চালায় মেসিরা। কিন্তু আসেনি সফলতা। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলেই শিরোপা খরা কাটে আর্জেন্টিনার। জয়োল্লাস করে মাঠ ছাড়ে স্কালোনি শিষ্যরা।  “